HomeFoodঘরোয়া পার্টিতে বাজিমাত করুন বানানা স্লাস দিয়ে! চটজলটি জেনে নিন রেসিপি

ঘরোয়া পার্টিতে বাজিমাত করুন বানানা স্লাস দিয়ে! চটজলটি জেনে নিন রেসিপি

- Advertisement -

ফলের রস তো এখন একঘেঁয়ে হয়ে গিয়েছে। তাহলে ফ্রুট জুসের বদলে এবার থেকে পান করুন কলার স্লাস। এর নামটা একটু অচেনা লাগতেই পারে। কিন্তু এটি পুষ্টিগুণ অন্যান্য ফলের রসের তুলনায় ঢের গুণ ভাল। শুধুমাত্র গ্রীষ্ম কেন, যে কোনও ঋতুতেই এই স্বাস্থ্যকর পানীয়টি খেলে শরীর ও মন একদম সতেজ হয়ে উঠবে। বন্ধুদের সঙ্গে ক্যাজুয়াল পার্টি হোক কিংবা ঘরোয়া কোনও অনুষ্ঠানের জন্য চটপট ও সহজ রেসিপি হিসেবে আপনি বানানা স্লাস তৈরি করতে পারেন। তবে এই স্লাস খাওয়ার নিয়ম হল এটিকে ঠান্ডা ঠান্ডাই পরিবেশন করা। একবার বানানোর পর ফ্রিজে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে ঠান্ডা করাই এটির নিয়ম। আর এই ঠাণ্ডা পানীয়ের অসাধারণ স্বাদ একবার নিলে আপনিও মোহিত হয়ে যাবেন। আসুন এবার জেনে নেওয়া যাক, এই বানানা স্লাস কিভাবে বানাবেন:

উপকরণ :

১ থেকে ২ কাপ স্ম্যাসড কলা, ১/৪ কাপ কমলা লেবুর জুস, ১/২ কাপ আনারসের জুস, ১/৪ কাপ গুড় বা চিনি, ৩ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১/২ কাপ পিন্ট স্প্রাইট

পদ্ধতি :

প্রথমে একটি বড় পাত্রে ১/৪ কাপ জল নিয়ে তাতে চিনি বা গুড় দিয়ে দিন। এরপর ওভেনে জল ফুটে এলে আঁচ বন্ধ করে আলাদা করে রেখে দিন। এবার অন্য একটি পাত্রে লেবুর রস, আনারসের জুস, কমলালেবুর জুস একসঙ্গে যোগ করে একটি মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এরপর তিনটি জুসের মিশ্রনের সঙ্গে স্ম্যাসড কলা মিশিয়ে ভাল করে পুরো মিশ্রণটিকে ঘেঁটে নিতে হবে। সবকিছু একসঙ্গে মিশে গেলে এবার চিনির সিরাপটি ঢেলে ফের একবার মিশ্রণটিকে মিশিয়ে নিতে হবে।

এরপর বানানা স্লাস তৈরি হলে সুন্দর সুন্দর গ্লাসে করে এটি ফ্রিজের মধ্যে ৪ ঘণ্টা রেখে দিন। ৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে স্লাসের মিশ্রণটিকে এবার ফ্রিজ থেকে বের করে আনুন। স্মুদি বা মকটেল গ্লাসে যদি এটিকে পরিবেশন করেন তাহলে স্লাসের মিশ্রণটি গ্লাসের হাফ ভরতি করে রাখুন। বাকি হাফ গ্লাসটি ভরতি করুন স্প্রাইট দিয়ে। সবশেষে গার্নিশিং-এর জন্য কিছু কলা কুচনো দিয়ে ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করুন মজাদার এবং পুষ্টিকর বানানা স্লাস।

Image source: Wikipedia

আরো পড়ুন: মাছ-মাংস খেতে না চাইলে খাদ্যতালিকায় রাখুন এই খাবার

- Advertisement -

Must Read

এক ঝলকে দেখে নিন ২০২১-এর মহালায়া ও দুর্গা পুজো-র নির্ঘন্ট!

গোটা একটা বছর ধরে করোনার জেরে সমস্ত পুজো আচ্ছা সব বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আগের বছরে সেভাবে কোন পুজো আচ্ছা হয়নি। বাঙালি সবথেকে বড় পুজো অর্থাৎ...