HomeTechGadgetsবিশ্বের বৃহত্তম বাংলার সকলের গর্ব প্রাচীন " টালার ট্যাঙ্কের " ইতিহাস সম্বন্ধে...

বিশ্বের বৃহত্তম বাংলার সকলের গর্ব প্রাচীন ” টালার ট্যাঙ্কের ” ইতিহাস সম্বন্ধে বিস্তারিত জানুন

কলকাতা ” টালা ট্যাঙ্ক ” শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গের নয় , এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম ওভারহেড রিজার্ভার। জানা যায় সবচেয়ে বড় জাহাজ ” টাইটানিক ” তৈরি করার সময় যে লোহা ব্যবহার করা হয়েছিল তা দিয়েই নাকি এই ” টালা ট্যাংক ” নির্মাণ করা হয়। ইংল্যান্ডের ম্যাঞ্চেস্টার থেকে জাহাজে করে আনা ৮৫০০ টন লোহা দিয়ে একটি প্রস্তুত করা হয়েছিল। এই ” টালা ট্যাঙ্ক ” টি মাটি থেকে প্রায় ১১০ ফুট উঁচুতে অবস্থিত যা সকলের কাছে বেশ বিস্ময়কর। ২১৫ টি লৌহ স্তম্ভের উপর অবস্থিত ২০ ফুটের এই ” টালা ট্যাঙ্ক ” টি সল্টলেক স্টেডিয়ামের থেকেও আয়তনে বিশাল বড়।

সূত্রে খবর , মোগল সম্রাট ফারুকশিয়ার কাছ থেকে ১৭১৭ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ৩৮ টি গ্রাম দখল নেয়। এই গ্রাম গুলির মধ্যে কলকাতায় ছিল তিনটি। কলকাতাকে উন্নত ও পুরোপুরি শহরে পরিণত করার জন্য সবচেয়ে আগে খেয়াল রাখা দরকার যাতে প্রতিটি নাগরিক সঠিক পানীয় গ্রহণ করতে পারেন। কারণ জলের গুরুত্ব সর্বাধিক। তখনকার দিনে নাগরিকদের জল সরবরাহ করার জন্য হেদুয়া , ভবানীপুর ও ওয়েলিংটনে পুকুর কেটে জল দেওয়া হত। কিন্তু পরে যখন অসংখ্য মানুষ কলকাতায় এসে নিজেদের জনবসতি গড়ে তুলতে শুরু করল , কলকাতা যখন ধীরে ধীরে বড় হতে লাগল আর সাথে সাথে নাগরিকদের জলের চাহিদাও আরো বাড়তে শুরু করল তখন সেই সময়ে পুর ইঞ্জিনিয়ার মিস্টার ডেভেরাল একটি রিজার্ভার তৈরি করার আবেদন দেন তাঁর সহকারী মিস্টার পিয়ার্সকে। বেঙ্গল গভর্মেন্টও ডেভেরালের এই আবেদনকে সম্মতি জানান। ১৯০১ সালে করা ওই আবেদন ১৯০২ সালে গ্রহণ করে কর্পোরেশন। তবে জলের পরিষেবা আরও উন্নত করার জন্য এর ঠিক এক বছর পর পৌরসভার নয়া নিযুক্ত ইঞ্জিনিয়ার ডব্লু বি ম্যাকক্যাবে আগের রিজার্ভার তৈরি করার জন্য প্রস্তাবিত টাকা বাড়িয়ে দিয়ে ৬৯ লক্ষ ১৭ হাজার ৮৭৪ টাকা করতে বলে।

জানা যায় , বাবু খেলাদ ঘোষ নামের এক ব্যক্তির জমিতে প্রচুর পুকুর ছিল তা ভরাট করেই নির্মাণ করা হয়েছিল এই ১০ তলা বাড়ি সমান ” টালার ট্যাঙ্ক “। তৎকালীন গভর্নর স্যার এডওয়ার্ড বেকার ১৯০৯ সালে এটির শিলান্যাস করেন। এরপর ১৯১১ সালে সাধারণ মানুষদের জল সরবরাহের জন্য খুলে দেওয়া হয়। টি সি মুখার্জি এন্ড কোম্পানি এই ট্যাংকটি ফাউন্ডেশনের কাজ করেছিল , রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জি মার্টিন অ্যান্ড কোম্পানি কংক্রিট ফাউন্ডেশনের এবং স্টিলের ফাউন্ডেশনের কাজ করেছিল ইংল্যান্ডের ক্লিটেনসন এন্ড কোম্পানি। তথ্য অনুযায়ী এই ” টালা ট্যাঙ্ক ” টি প্রায় ৯০ লক্ষ গ্যালন জল ধরতে পারে। আগে কলকাতার সব জায়গায় জল সরবরাহ করত পৃথিবীর অন্যতম বড় এই জলের রিজার্ভারটি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যখন জাপান বোমা ফেলেছিল তখন এই ” টালা ট্যাঙ্কে ” মাত্র ৯টিই ছিদ্র হয়েছিল আর কোনো ক্ষতি হয়নি। শুধু তাই নয় প্রচুর ভূমিকম্পেও এই রিজার্ভারটির কিচ্ছু হয়নি। জল মানুষের জীবন তাই ১৯৬২ ও ১৯৭১ সালে হওয়া যুদ্ধে চীন ও পাকিস্তানের একমাত্র লক্ষ্য ছিল এই রিজার্ভারটি ধ্বংস করে দেওয়া। তবে শেষ পর্যন্ত প্রতিটি বাঙালির সবচেয়ে গর্ব এই ” টালা ট্যাঙ্ক ” টি সকল বাধা ও প্রতিকূল উর্ত্তীন্ন করে আজও একই ভাবে জল সরবরাহ করে যাচ্ছে। প্রায় ১৩০ কিলোমিটার গতিবেগে আসা আমফান ঝড়ে ভয় পেয়েছিল তবে সেই বিপদও অতিক্রম করে ” টালা ট্যাঙ্ক “।

আমফানের ঝড়ই সকলের কাছে প্রমাণ করে দিয়েছে আগামী ১০০ বছরও সুরক্ষিত বঙ্গবাসীর গর্ব ” টালার ট্যাঙ্ক “।

Image Source : Wikipedia

আরোপড়ুন : মায়ের বয়েস ১৬, সন্তানের বয়েস ২৫ হতে পারে?’ এই প্রসঙ্গে কাকে নিয়ে ব্যঙ্গ করলেন অর্চনা!!!

RELATED ARTICLES

কৈলাস পর্বতে স্যাটেলাইট লাগিয়ে কিদৃশ্য দেখে চমকে গেলেন নাসা...

কৈলাস পর্বতে র নাম সবার জানা হিন্দুদের মতে এই কৈলাস পর্বতে দেবাদিদেব মহাদেব বিরাজমান।...

মাত্র ৮ বছর বয়সে ৩ টি খুন! বিশ্বের কনিষ্ঠতম...

Psychopath (সাইকোপ্যাথ) এমন একটি মানসিঅ রোগ যার ফলে মানুষ মায়া, আবেগ, অনুভূমি সবকিছুকে ভুলে...

নিজের মা ও সৎ বাবাকে পুড়িয়ে দেওয়ার হুমকি থেকে...

মাধ্যাকর্ষণ শক্তি তথা Gravity এর প্রসঙ্গ এলেই প্রথমে মাথায় আসে নিউটন (Newton) এর মাথার...

ভিকির প্রেমেই মজেছে ক্যাট ! জল কতদূর গড়াচ্ছে তাঁদের...

বলি টাউনে পা রাখার সাথে সাথেই সলমনের প্রেমে পাগল হয়ে গেলেও বেশিদিন সেই সম্পর্কে...

প্রসেনজিতের ৫৮ তম জন্মদিনে জেনে নিন অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি...

দু'দশক ধরে টলিউড ইন্ডাস্ট্রির অতি জনপ্রিয় অভিনেতা হলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর অভিনয় দক্ষতায় তিনি...

ওয়েব সিরিজ দেখে জালিয়াতি ! গ্রেফতার পাঁচ যুবকের একটি...

ওয়েব সিরিজ দেখে সুন্দর করে অপরাধের ছক কষে রাতারাতি সাফল্য পেয়ে আয়েশি জীবন যাপন...