Homeceleb lifeসত্যজিৎ রায়ের অভিনব ভাবনা এবার আপনার নাগালে, প্রকাশ পেল 'খেরোর খাতা'

সত্যজিৎ রায়ের অভিনব ভাবনা এবার আপনার নাগালে, প্রকাশ পেল ‘খেরোর খাতা’

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

কিংবদন্তী কালজয়ী পরিচালক, লেখক সত্যজিৎ রায় প্রত্যেক ছবি তৈরির আগে একটি খেরোর খাতায় সবটা লিখতেন। সেই লাল খেরোর কাপড় দিয়ে বাঁধানো নোটবইটি পরিচালক নিজের চলচ্চিত্র তৈরির কাজে ব্যবহার করতেন। পরবর্তীকালে সেটা পরিণত হয়েছিল ফিল্ম তথা ছবির খাতায়। এক একটা সিনেমার জন্য ছিল এরকমই এক একটা খেরোর খাতা। আজও সেই খাতাগুলো চলচ্চিত্র নির্মাণের অনন্য দলিল। ভাবুন, সেই দামী খাতা যদি এখন এসে যায় আপনার হাতের মুঠোয়! তাহলে? হ্যাঁ এখন সেই সম্পত্তি আপনার হাতের মুঠোতে। মুঠো ফোনেই পাবেন এর অস্তিত্ব। 

সম্প্রতি কিছু উদ্যোগী মানুষের সহায়তায় তৈরি করা হয়েছে একটি ওয়েবসাইট। নাম- exploreray.org। এখানেই পাওয়া যাবে সত্যজিৎ রায়ের সেই অমূল্য সম্পদ। পরিচালক রীতিমতো প্রত্যেকটি দৃশ্য নিজের হাঁতে আঁকতেন। আর সেটা আঁকা হত এই খেরোর খাতায়। সম্পূর্ণ দৃশ্যে পুঙ্খানুপুঙ্খ পূর্বপরিকল্পনা থাকত এই খাতা গুলোতে। ছবির চরিত্ররা কী পোশাক পরবে, স্টোরি বোর্ড কী হবে, চরিত্র, সেট, সঙ্গীত, সংলাপ, প্রোডাকশন নোট, পোস্ট প্রোডাকশনের সমস্ত খুঁটিনাটি থাকত এই খাতায়। ক্যারিয়ারে ৫০টিরও বেশি সিনেমা আর প্রত্যেকটি সিনেমারই রয়েছে এই ‘খেরোর খাতা’। যা আজকের দিন এবং আগামী দিনেও অমূল্য সম্পদ হয়ে থাকবে। 

এবার সেই খেরোর খাতার দুটি খাতা  হাতের মুঠোয়। কালজয়ী ছবি ‘গুপি গাইন বাঘা বাইন’-এর জন্য দুটি খেরোর খাতা রেখে গিয়েছেন পরিচালক। এই দুটি খাতাকেই ফিল্ম বুক-এ রূপান্তিত করে শেয়ার করা হয়েছে ওয়েবসাইটে। এর প্রথম পর্বে রয়েছে ছবিটি তৈরির সমস্ত তথ্য।  আর দ্বিতীয় পর্বে রয়েছে ৯০ পাতার নাচের বর্ণনা। এছাড়াও রয়েছে, সম্পাদনা, নেপথ্য সঙ্গীত, সাউন্ড ও স্পেশ্যাল এফেক্টের সহ একাধিক বিষয়।  

উল্লেখযোগ্য, সত্যজিৎ পুত্র পরিচালক সন্দীপ রায়, মৃণাল সেনের পুত্র কুণাল সেন এবং পূর্ণিমা দত্তর মিলিথ উদ্যোগে ওয়েবসাইটটি সম্পূর্ণ  হতে পেরেছে। এপ্রসঙ্গে একটি ইন্টারভিউয়ে সন্দীপ রায় বলেন, “এটা খুব ইটাব়্যাকটিভ একটা উদ্যোগ। এতে গান শোনা যাবে, ছবি দেখা যাবে, স্ক্রিপ্টের অংশ পড়া যাবে, তাও ইংরেজি বাংলা দুটি ভাষাতেই। আমরা অনেকে মিলেই কাজটা করেছি। মৃণালবাবুর ছেলে কুণাল সেন এই কাজে যোগদান করেছেন। আমরা খুবই আনন্দিত। কিছুদিন আগে কুণালও মৃণালবাবুর কিছু শর্টফিল্ম সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়েছেন। খুবই ভাল কাজ করছেন তিনি। বাবার কাজগুলোও এভাবে আমরা সকলে মিলে আনতে পারছি। প্রথম খেরোর খাতা মানুষের কতটা পছন্দ হয় আগে দেখি। তারপর অন্যান্য খেরোর খাতাগুলোও আমরা ওয়েবসাইটে দেব।”

Image Source : Facebook

আরও পড়ুন : ভারতের সবচেয়ে বড় অস্ত্র লাইসেন্স দুর্নীতি কান্ডে জড়িত জেলাশাসকরাই! তদন্তে নেমে তাজ্জব CBI

- Advertisement -

Must Read

“বেকড মিহিদানা”, এবারে বাড়িতেই বসে তৈরি করে নিন দোকানের মত এই মিষ্টির স্বাদ!!

খাঁটি বাঙালি মানেই মিষ্টি তার প্রিয় খাদ্য। মাছ থেকে মাংস যত পঞ্চব্যঞ্জন রান্না করে দেওয়া হোক না কেন শেষপাতে বাগানের মিষ্টি চাই। সামনে আসতে...